বুধবার, ১৭ Jul ২০২৪, ১০:৫৯ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ:
টাঙ্গাইলে বঙ্গবন্ধু ব্রিজ এলেঙ্গা রিসোর্টে খদ্দেরসহ সাত যৌনকর্মী গ্রেপ্তার , বার বার ছাড় পেয়ে যাচ্ছে রিসোর্টের কর্মীরা

সংবাদদাতা : টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে এলেঙ্গা বিরতি রিসোর্ট বা বঙ্গবন্ধু ব্রিজ এলেঙ্গা রি‌সো‌র্টে অভিযান চালিয়ে তিন খদ্দেরসহ সাত যৌনকর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এই ঘটনায় রি‌সো‌র্টের বিরু‌দ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়‌নি পু‌লিশ।

সোমবার (১ জুলাই) এ ঘটনায় মানবপাচার আইনে মামলা দায়ের করে দুপুরে তাদেরকে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

এরআগে রোববার রা‌তে এলেঙ্গা বির‌তি রি‌সো‌র্টে অ‌ভিযান প‌রিচালনা ক‌রে পু‌লিশ।

গ্রেপ্তারকৃতরা হচ্ছেন- পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলার মুলাডুর গ্রামের মৃত আ. করিমের ছেলে মো. মোজাম্মেল (৫৮), টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলার ব্রাহ্মণশাসন গ্রামের রিয়াজ উদ্দিনের ছেলে আফজাল হোসেন (৩৫), বগুড়া সদর উপজেলার বালিয়াডাঙ্গা গ্রামের রেজাউল করিমের ছেলে কনক ইসলাম (৩০), টাঙ্গাইল শহরের বোয়ালী মধ্যপাড়ার মৃত আবু সাঈদের মেয়ে হাফিজা ওরফে হাবিবা (২৫), একই শহরের অলোয়াভবানী এলাকার আ. করিমের মেয়ে শিউলী (২৪), একই জেলার গোপালপুর উপজেলার নরিল্যা গ্রামের আ. কাদেরের মেয়ে কুলসুম (১৯), টাঙ্গাইল শহরের বিশ্বাসবেতকা (সৃষ্টিস্কুল রোড) এলাকার মো. সিদ্দিকুর রহমানের মেয়ে সারিয়া রহমান জাকিয়া (২১), শহরের বটতলার মরহুম ফজলুর রহমানের মেয়ে ফারজানা (৩২), মির্জাপুর উপজেলার কুরণী গ্রামের মৃত কদ্দুছ খানের মেয়ে ঈশা শাহনাজ (২৭) এবং যশোর জেলার মনিরামপুর উপজেলার বাঙালিপুর গ্রামের আশরাফ গাজীর মেয়ে মুক্তা (৩০)।

জানা গে‌ছে, মহাসড়‌কের পা‌শে হওয়ায় প্রভাবশালী‌দের অ‌নৈ‌তিক সু‌বিধা দি‌য়ে দীর্ঘদিন ধ‌রে এলেঙ্গা রি‌সোর্ট বা বঙ্গবন্ধু ব্রিজ এলেঙ্গা রি‌সো‌র্টে অ‌বৈধ কর্মকান্ড প‌রিচালনা করা হ‌চ্ছে। বহু ভিআইপিরাও এই রি‌সোর্টে যাত্রা বি‌র‌তি দেয়। এই সু‌যোগ কা‌জে লা‌গি‌য়ে স্থানীয় প্রশাসন‌কে ম‌্যা‌নেজ ক‌রে যৌন ব‌্যবসা প‌রিচালনা করা হ‌চ্ছে।

স্থানীয়রা জানায়, ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়‌কের পা‌শেই এলেঙ্গা রি‌সোর্টে রেস্টু‌রেন্ট আড়া‌লে যৌন ব্যবসা প‌রিচালনা করা হয়। রি‌সোর্ট কর্তৃপক্ষ খ‌দ্দের সংগ্রহ করে যৌনকর্মী‌দের ভাড়া ক‌রে আনে। এছাড়া যৌন ব‌্যবসা ছাড়াও রিসো‌র্টে মাদকের ব‌্যবসা করা হয় প্রশাসন‌কে ম‌্যা‌নেজ ক‌রে। এরআগেও ক‌য়েকবার খ‌দ্দেরসহ যৌনকর্মী‌দের আটক ক‌রে‌ছিল পু‌লিশ। ত‌বে রি‌সো‌র্টের কাউক আইনের আওতায় আনা হয় না। প্রতিবারই তা‌দের ছাড় দেয়া হয়।

কা‌লিহাতী থানার উপ-প‌রিদর্শক (এসআই) সাজ্জাদ হোসেন জানান, রোববার গভীর রাতে গোপণে অসামাজিক কার্যকলাপের সংবাদ পেয়ে এলেঙ্গাস্থ বিরতি রিসোর্টে অভিযান চালিয়ে উল্লেখিত ব্যক্তিদের গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় বিরতি রিসোর্টের মোসলেম উদ্দিন (৫৫), ফাহাদ (৩৫) ও সিরাজুলসহ (৩৫) ৩-৪জন দৌঁড়ে পালিয়ে যায়।

কালিহাতী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুল ফারুক জানান, এসআই সাজ্জাদ হোসেনের নেতৃ‌ত্বে অভিযান পরিচালনা করা হয়। এসময় রি‌সো‌র্টের লোকজন পা‌লি‌য়ে যায়।  প‌রে ১৩ জনের নামে মানবপাচার আইনের ১২/১৩ ধারায় মামলা দায়ের করা হয়।#

 

এই ওয়েবসাইটের যে কোনো লেখা বা ছবি পুনঃপ্রকাশের ক্ষেত্রে ঋন স্বীকার বাঞ্চনীয় ।